হার্নিয়া রোগ কি হার্নিয়া রোগ হলে করণীয় কি-হার্নিয়া রোগের লক্ষণ গুলি কি কি

 হার্নিয়া আমাদের দেশে সচরাচর দেখা যায় এমন একটি পরিচিত রোগ হার্নিয়া যাতে নাড়িভূড়ির একটি অংশ উদরগ্রাত্র ভেদ করে  অন্তথলিতে  নেমে যায়।মানুষের পেটের ভিতর খাদ্যনালী মুখ থেকে পায়ু পর্যন্ত বিস্তৃত  হার্নিয়ার ক্ষেত্রে পেটের কিছু দুর্বল অংশ দিয়ে ক্ষুদ্র অংশ বিশেষ অন্তথলিতে চলে আসে। তখন কুচকি এবং অন্তথলী অস্বাভাবিক ফুলে যায় হার্নিয়া আমাদের একটি কমন রোগ এই রোগ সম্পর্কে অনেকে জানে না তাই চলুন জেনে নেওয়া যাক হানিয়া কি হানিয়া রোগের সাথে পরিচিত



সূচিপত্র:হার্নিয়া রোগ কি হার্নিয়া রোগ হলে করণীয় কি-হার্নিয়া রোগের লক্ষণ গুলি কি কি

হার্নিয়া কি হার্নিয়া বলতে কি বুঝায়

আমাদের পেজ রেডি এটি ক্লোজ  ক্যাভেটি ।এই ক্লোজ ক্যাভেটি থেকে পেটের দেয়াল যেটি রয়েছে দুর্বল অংশ দিয়ে যদি চর্বি বের হয় সাধারণত একে আমরা হার্নিয়া বলি।

হার্নিয়া রোগ কি-হার্নিয়া রোগের লক্ষণ 

হার্নিয়া হল গহ্বরের দুর্বল প্রাচীর যেমন পেট বা পেলভিক মেঝে এর আসল স্থান থেকে পেশি বা টিস্যুর প্রসারণ সাধারণত হার্নিয়া গহ্বর থেকে উদ্ভূত একটি স্ফীতি হিসাবে প্রদর্শিত হয়। এটি শরীরের অনেক জায়গায় ঘটতে পারে হার্নিয়ার পরিলক্ষিত সবচেয়ে সাধারণ জায়গা হলো পেট এবং পেলভিক মেঝে কুঁচকি উপরের উরু এবং নাভি পেট এবং ইন গুনাল হার্নিয়াস সবচেয়ে সাধারণ পুরুষ এবং মহিলাদের তুলনায় ইনগুইনাল হার্নিয়াতে বেশি ভোগেন।

হার্নিয়া কেন হয় হার্নিয়া কখন হয়

হানিয়া কেন হয় হার্নিয়া কখন হয় এটি কয়েকটি ভাগে ব্যাখ্যা করা হয়েছে। হার্নিয়া জন্মগত ত্রুটির জন্য হতে পারে আরেকটা হল জন্মের পরে বিভিন্ন কারণে হতে পারে কোন কারনে যদি একটি অস্ত্র পাচার হয় সেখানে একটি দুর্বল অংশ তৈরি হয় অথবা দেখা গেল একজন রোগী স্থূল অথবা দেখা গেল সে গর্ভবতী হয়েছিল অথবা দেখা গেল তার দীর্ঘমেয়াদি কফ  অথবা কোষ্ঠকাঠিন্য অথবা প্রসাব করতে গেলে তাকে বেগ দিয়ে  প্রসাব করতে হয়।
 দীর্ঘ মেয়াদে যদি সে এই কাজটা করে তাহলে তার দুর্বল পয়েন্ট যদি রয়েছে সেটি দিয়ে তার পেটের ভেতরে খাদ্যনালী অথবা ওমেনটামের পাশে যে চর্বি থাকে দুটোই বের হয়ে যেতে পারে একে আমরা হার্নিয়া হিসেবে বলি। অথবা এগুলোকে আমরা কারণ হিসেবে বলি।

হার্নিয়া রোগের উপসর্গ

হার্নিয়া থাকলে যে সবার উপসর্গ থাকবে তা নয় বিশেষ করে ছোট হানিয়ার ক্ষেত্রে। উপসর্গগুলো মধ্যে সচার আসর ব্যথায় প্রধান উপসর্গ এছাড়া  পেটে বা কচুকিতে ভারী ভাব অনুভূত হতে পারে আপনার কোন নির্দিষ্ট থাকুক বা না থাকুক হার্নিয়া আপনার কাজে বা অবসরে যেকোনো সময় ব্যাঘাত ঘটাতে পারে। কাজে হানিয়ার কারণ আপনার কাছ থেকে বা ছুটির অবসরে স্বাস্থ্যের কতটুকু ব্যাঘাত ঘটাচ্ছে তা আপনাকে বুঝতে হবে। হার্নিয়া উপসর্গ না থাকলেও আপনার শরীরে বাসা বাঁধতে পারে তাই শুধু উপসর্গের উপর নির্ভর করে হার্নিয়া হয় না।

হার্নিয়া কত প্রকার ও কি কি

 হার্নিয়া অনেক ধরনের হতে পারে তবে হার্নিয়ার কিছু সাধারন ধরন দেওয়া হলো
1. ইনগুইনাল হার্নিয়া= আপনার অস্ত্রগুলি আপনার পেটের মধ্যে দিয়ে ধাক্কা দেয়
2. হাইটাল হার্নিয়া= আপনার পেটের কিছু অংশে আপনার বুকের মধ্যে গহরের মধ্য দিয়ে আপনার ডায়ফ্রাম পর্যন্ত প্রসারিত

বেশিরভাগ হার্নিয়া জন্মের পরে বিকাশ ঘটে। এগুলোকে অর্জিত হার্নিয়াস বলা হয়। কিন্তু কিছু হার্নিয়াস নবজাতক শিশুদের মধ্যে হয়ে থাকে এবং জন্মের আগে বা তার আগে পরিলক্ষিত হয় এই হার্নিয়া গুলিকে জন্মগত হার্নিয়া বলা হয়। উৎপত্তিস্থলের উপর নির্ভর করে বিভিন্ন ধরনের হার্নিয়া বর্ণনা করা হয়েছে 

পেটের হার্নিয়া কুচকির অস্ত্রবৃদ্ধি
এটি হার্নিয়ার সবচেয়ে সাধারণ প্রকার পশ্চিমা গবেষণায় ইনগুইনাল হার্নিয়ার ক্ষেত্রে 70% গঠন করে এ অবস্থায় অস্ত্রের একটি অংশ দুর্বল পেটের প্রাচীন গহরের গহরের মধ্য দিয়ে বেরিয়ে আসে এবং খুশকি বা ইনগুইনাল অঞ্চলে উপস্থিত হয় এটি দুই প্রকার
1. সরাসরি ইনগুইনাল হার্নিয়া
2. পরোক্ষ ইনগুইনাল হার্নিয়া

ওবটুরেটর হার্নিয়া হার্নিয়া
এটি পেলভিক ফ্লোরের  হার্নিয়াসের সবচেয়ে সাধারণ প্রকার এবং সাধারণত বাহ্যিকভাবে এটি স্ফীতি হিসেবে উপস্থিত হয় না। এটি ওজন হ্রাস এবং একাধিক গর্ভ অবস্থায় সহ মহিলাদের মধ্যে দেখা দেয়।

ফেমোরাল হার্নিয়া
এই হার্নিয়া গুলি সাধারণত এবং উরুর উপরের অংশে প্রদর্শিত হয় অস্ত্রের একটি অংশ ফেমোরাল খাল নামে পরিচিত একটি অঞ্চলে প্রবেশ করে এবং উপরের উরুতে উপস্থিত হয় এটি সাধারণত গর্ভবতী মহিলাদের মধ্যে এটি বিস্তৃত পেলভিক কাঠামোর কারণে দেখা যায়।

আম্বি লিকার হার্নিয়া
এটি ঘটে যখন ছোট অস্ত্রীর একটি বড় অংশ অম্বিলিকাছের মধ্য দিয়ে প্রসারিত হয় এবং নাভিতে একটি স্ফীতি হিসাবে উপস্থিত হয়। এটি নবজাতক এবং একাধিক গর্ভবতকালের মহিলাদের মধ্যে বেশি দেখা যায়।

হিয়াতাল হার্নিয়া
এটি ঘটে যখন পেটের উপরে অংশটি ডায়াফ্রমের একটি খোঁজার মধ্যে দিয়ে স্যালাইড করে যার মধ্য দিয়ে খাদ্যনালী যায়

হার্নিয়া অনন্য প্রকার 
স্পিগেলিয়ান হানিয়াঃ এটি ঘটে যখন ছোট অস্ত্রগুলি পেটের প্রাচীরের স্তরগুলোর মধ্য দিয়ে প্রসারিত হয় এটি পার্শ্বীয় ভেন্ট্রাল হার্নিয়া নামেও পরিচিত
ইনসিশনাল হার্নিয়াঃ এটি সাধারণত পেটের অস্ত্র পাচারের জটিলতা হিসেবে ঘটে এবং যেখানে একটি সেট করে সেখানে ঘটে
ডায়াস্ট্যাসিস রেক্টিঃ এটি ঘটে যখন পেটের পেশি আলাদা হয়ে যায় ও অভ্যন্তরীণ অঙ্গগুলি তাদের মধ্যে প্রসারিত হয়
ডায়াফ্রাম্যাটিক হার্নিয়াঃ যখন অস্ত্রের একটি অংশ বা পেটের গহ্বরের অন্যান্য অঙ্গ গুলি ডায়াফ্রমে খোলার মাধ্যমে বেরিয়ে আসে তখন তাকে ডায়াফ্রাম্যাটিক হার্নিয়া
কারণ সমূহ
মূলত হার্নিয়া পেশী ও স্ট্রেনের দুর্বলতার সংমিশ্রণের ফলাফল তবে হার্নিয়া আরো কিছু কারণ দেওয়া হলো
1.বার্ধক্য
2. ভারী ওজন উত্তোলন এবং  চাপযুক্ত  কার্যকলাপ
3. কোষ্ঠকাঠিন্য কারণে আপনি স্ট্রাই করেন
4. আঘাত বা অস্ত্র পাচারের কারণে ক্ষতি
হার্নিয়ার কারণ ভিন্ন ধরনের জন্য ভিন্ন প্রতিটি নির্দিষ্ট ধরনের হার্নিয়ার একটি নির্দিষ্ট কারণ থাকতে পারে

ইনগুইনাল হার্নিয়া
ইনগুইনাল হার্নিয়ার বেশিরভাগ ক্ষেত্রে পেটের দেওয়াল দুর্বল হয়ে যাওয়ার প্রধান কারণ। জন্মের সময় যখন পেটের অন্তরন সঠিকভাবে বন্ধ করতে ব্যর্থ হয় তখন এর ফলে ইনগুইনাল হার্নিয়া হয় পরবর্তীতে এই ধরনের হার্নিয়ার বার্ধক্য শরীরের কঠোর পরিশ্রম এবং বারবার কাশির কারণে দুর্বল হয়ে যাওয়ার পেশির ফলে যায়। পেটের দুর্বলতা যা হার্নিয়ার দিকে পরিচালিত করে বা পেটের অত্র পাচারের ফলেও হতে পারে কাশি এবং স্টেনিং পেটের মধ্যে চাপ বাড়ায় এবং অস্ত্রের অঙ্গ গুলি দুর্বল পেটের প্রাচীরের মধ্য দিয়ে প্রসারিত করে
ইনগুইনাল হার্নিয়ার কারণগুলির মধ্যে রয়েছে 1. শারীরিক কার্যকলাপ বৃদ্ধি 2. গর্ভাবস্থা 3. দীর্ঘস্থায়ী কাশি এবং সর্দি 4. মলত্যাগ এবং প্রসাবের সময় স্টেনিং 5. পেটের পাচিরে বিদ্যমান দুর্বল স্থান

ফেমোরাল  হার্নিয়া
ফেমোরাল  হার্নিয়া প্রকৃত কারণ এখনো জানা যায়নি তবে এটি ফেমোরাল দুর্বল হওয়ার ফলে দেখা দিতে পারে।উরুর সামনের অংশ ফেমোরাল খাল একটি টিউবের মতো গঠন এতে লিস্ট নোট এবং সংযোগকারী টিস্যু থাকে এটি বিভিন্ন কারণে দুর্বল হয়ে পড়ে কারণ সমূহ
1. ভারী ওজন উত্তোলন
2. দীর্ঘস্থায়ী কোষ্ঠকাঠিন্য
3. প্রসব
4. অতিরিক্ত ওজন
5. প্রসব করা কঠিন

আম্বিলিকাল হার্নিয়া
নাভির হার্নিয়া হয় যখন পেটের বিষয়বস্ত পেটের বোতাম দিয়ে বেরিয়ে আসে এটি ঘটে যখন পেটের পেশী গুলো নাভিতে সম্পূর্ণভাবে বন্ধ হতে ব্যর্থ হয়। এ ধরনের হার্নিয়া শিশুদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি তবে প্রাপ্তবয়স্কদের ক্ষেত্রে এটি খুব কমই ঘটে যেসব শিশুদের সময়ের আগে জন্ম নেয় বা কম ওজনের জন্ম নেয় তারা এ ধরনের হার্নিয়া আক্রান্ত হয়। প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে পেটের পেশির দুর্বল অংশে হঠাৎ চাপের কারণে নাভির হার্নিয়া হতে পারে প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে এই হার্নিয়ার কারণ সমূহ হলো
1. অতিরিক্ত ওজন
2. ঘন ঘন গর্ভবস্থা
3. পেটের অস্ত্র পাচার
4. দীর্ঘস্থায়ী কাশি
5. একাধিক গর্ভধারণ

অবটুরেটর  হার্নিয়া
প্রাকৃতিক বার্ধক্য প্রক্রিয়ার একটি অবটুরেটর  হার্নিয়া প্রধান কারণ এক হতে পারে যেহেতু বার্ধক্য প্রক্রিয়ার ফলে পেশী ভর এবং পেটি টিস্যু ঢিলা হয়ে যায় তাই অস্ত্র এবং পেটের বিষয়বস্ত পেলভিস থেকে উরুতে ওবুরোটর খালের মাধ্যমে যেতে পারে। পুরুষদের তুলনায় মহিলাদের মধ্যে অবটুরেটর  হার্নিয়া হার্নিয়ার হওয়ার সম্ভাবনা বেশি মহিলাদের মধ্যে যারা একাধিক সন্তান প্রসব করে তারা বেশি দুর্বল ।অবটুরেটর  হার্নিয়া আরো কিছু কারণ এর মধ্যে রয়েছে বেশি টিস্যু হ্রাস  হঠাৎ ওজন হ্রাস ও পুষ্টিহীনতা

হাইটাল হার্নিয়া
হাইটাল হার্নিয়ার রোগগুলি আঘাত বা ক্ষতির কারণে ঘটে পেশি টিস্যুগুলিকে দুর্বল করে পেটের চার পাশে পেশী গুলির উপর চাপ বৃদ্ধি ডায়াফ্রমের মাধ্যমে পেটকে ধাক্কা দেয় এ ধরনের চাপ সৃষ্টিকারী কার কার মধ্যে রয়েছে
1. কাশি
2. বমি
3. ভারী  ওজন উত্তোলন
4. মলত্যাগের সময় ট্রেনিং
5. কিছু ক্ষেত্রে মানুষ এটি বড় ব্যবধান নিয়ে জন্মগ্রহণ করে যা পেটের সহজে এটির মধ্যে দিয়ে যেতে দেয়

স্বতন্ত্র ধরনের হার্নিয়ার কারণগুলি ছাড়াও কিছু সাধারণ কারণ হার্নিয়া সৃষ্টি বা টিগার করার ক্ষেত্রে ভূমিকা পালন করে।ইন্ট্রা গহ্বরের চাপ বৃদ্ধির ফলে হার্নিয়া হতে পারে। পেটে সাপ বৃদ্ধির প্রধান কারণ গুলোর মধ্যে রয়েছে
1. আঘাতের ফলে ফেটে ধারালো আঘাত লাগে।
2. গর্ভে শিশুর বৃদ্ধির সময় পেটের প্রাচীর সঠিকভাবে বন্ধ করতে ব্যর্থতা
3. প্রসাব এবং কোষ্ঠকাঠিন্যর সময় অতিরিক্ত স্টেইনিং
4. পাকস্থলী এবং অন্যান্য অঙ্গের রোগ যেমন বর্ধিত প্রোটেস্ট এবং মূত্রের সহায়ক ক্যান্সার
5. অবিরাম বমি হওয়া
6. অতিরিক্ত ধূমপান করা
7. ভুলভঙ্গি
8. সার্জারি

লক্ষণ
হার্নিয়ার সাধারণ লক্ষণ গুলি হল
1. আপনার শরীরে প্রভাবিত এলাকায় একটি দৃশ্যমান পিণ্ড
2. আক্রান্ত স্থানে চারপাশে কিছু জানা ও ব্যথা
3. হার্নিয়াসের রোগীর লক্ষণগুলোর বা উপসর্গ বিহীন হতে পারে হার্নিয়া লক্ষণগুলো একাকার এবং জটিলতার উপস্থিত সাথে সম্পর্কিত
যেসব রোগী উপসর্গহীন রোগীদের একটি অপসংগিক বা সম্পর্কহীন উপসর্গ বা সমস্যার জন্য নিয়মিত চিকিৎসা বা শারীরিক পরীক্ষার সময় নির্ণয় করা হয় প্রতিটি হার্নিয়া সাধারণত উপসর্গগুলো ছাড়া বিভিন্ন উপসর্গ দ্বারা চিহ্নিত করা যেতে পারে তাদের ধরনের উপর ভিত্তি করে হার্নিয়া আর কিছু লক্ষণ নিম্নরূপ

ইনগুইনাল হার্নিয়া
ইনগুইনাল হার্নিয়া নির্দেশ করে এমন সাধারণ লক্ষণ ও উপসর্গদের মধ্যে রয়েছে
1.  কিছুতেই ব্যথা ও অস্বস্তি
2. পিউবিক হাড়ের উভয় পাশে স্ফীতি
3.কুচকিতে ভারীতা
4.কুচকিতে দুর্বলতা
5. অন্ডকোষের চারপাশে ব্যথা বা ফোলা ভাব 

ফেমোরাল হার্নিয়া
ফেমোরাল হার্নিয়া ক্ষেত্রে বেশিরভাগ ছোট আকারের হার্নিয়া অলক্ষিত হয় শুধুমাত্র বড় হার্নিয়া স লক্ষণীয় হতে পারে এবং অস্বস্তি সৃষ্টি হতে পারে উপরের উরুর কাছে কুচকির এলাকার একটি স্ফীতি হতে পারে ভারী ওজন তোলার সময় বা অন্য কোন ধরনের স্টেনের শিকার হলে স্ফীতি দেখা দিতে পারে এবং আরো খারাপ হতে পারে।নিতম্বে ব্যথা ফেমোরাল হার্নিয়া জন্য একটি প্রধান উপসর্গ হতে পারে কারণ এই হার্নিয়া গুলি নিতম্বের হাড়ের খুব কাছাকাছি থাকে

শুরুতেই ফেমোরাল হার্নিয়া অস্ত্রের বাধা সৃষ্টি করতে পারে একজন ব্যক্তির জীবনকে বিপদে ফেলতে পারে শ্বাসরোধ বা অস্ত্রের বাধা নির্দেশ করে এমন লক্ষণ গুলোর মধ্যে রয়েছে
1. তীব্র পেটব্যথা
2. বমি বমি ভাব
3. বমি হওয়া
4. কচকিতে হঠাৎ ব্যথা
এই হার্নিয়া অস্ত্রে রক্ত প্রবাহ হস্তক্ষেপ করতে পারে তাই জরুরী চিকিৎসা প্রয়োজন দেরি হলে অবস্থা মারাত্মক হয়ে উঠতে পারে এই হার্নিয়া

অবটুরেটর হার্নিয়া
একটি অন্তে বাধা একটি প্রধান উপসর্গ যা অবটুরেটর হার্নিয়া নির্দেশ করে কিছু কিছু ক্ষেত্রে হার্নিয়া শনাক্ত হওয়ার আগে অন্তে  বাধা দেয় অন্তের প্রতিবন্ধতার লক্ষণগুলো বোঝার একজনকে একটি অবটুরেটর হার্নিয়া স্বর্ণা তো করতে সহায়তা করে হার্নিয়া চলাকালীন  অন্তে  বাধার কিছু লক্ষণগুলোর মধ্যে রয়েছে
1. পেট ফোলা
2. ব্যথা
3. কোষ্ঠকাঠিন্য
4. বমি বমি ভাব বা বমি হওয়া

আম্বিলিকাল হার্নিয়া
আম্বিলিকাল হার্নিয়া শিশুদের মধ্যে নাভির হার্নিয়া দেখা যায় তারা কাঁদছে হাসরে বা মলত্যাগ করার সময় চাপ দিচ্ছে একটি শিথিল ভঙ্গিতে এই হার্নিয়া দৃশ্যমান হয় শিশুদের মধ্যে নাভির হার্নিয়ার সাধারণত লক্ষণ গুলো হলো
1. হঠাৎ বমি হওয়া
2. ব্যাথা হওয়া
3. নাভির এলাকার কাছাকাছি স্ফীতি 
4. তীব্র ব্যথা বা অস্বস্তি

হাইটাল হার্নিয়া
বড় হাইটাল  হার্নিয়া উপসর্গ দেখায় কিন্তু ছোটদের কোন লক্ষণ বা উপসর্গ দেখায় না বৃহত্তম হাই তার হার্নিয়াসের কিছু লক্ষণ গুলোর মধ্যে রয়েছে
1. এসিড রিফ্লাক্স
2. অম্বল
3. মুখের মধ্যে খাদ্য বা তরল পূর্ণ স্থাপন
4. পেটব্যথা
5. বুকে অস্বস্তি লাগা
6. নিঃশ্বাসে দুর্বলতা
7. কালো রঙের মল
8. রক্ত হওয়া বমি হওয়া
এই হার্নিয়া গুলো গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল রক্তপাতের কারণে হতে পারে যার ফলে কালো মল রক্ত বমি হতে পারে

হার্নিয়া ঝুঁকির কারণ
হার্নিয়া যে কারোর ঘটতে পারে তবে কিছু নির্দিষ্ট ব্যক্তি সাধারণত জনসংখ্যা তুলনায় এটির জন্য বেশি ঝুঁকিপূর্ণ যে কারণগুলো ব্যক্তিদের হার্নিয়া হওয়ার ঝুঁকি রাখে সেগুলোর মধ্যে রয়েছে
1. লিঙ্গ= মহিলাদের তুলনায় পুরুষদের হার্নিয়া বিশেষ করে ইনগুইনাল হার্নিয়া সম্ভাবনা বেশি
2. বয়স= যদিও হার্নিয়া শিশুদের পাশাপাশি বয়স্ক মধ্যে সাধারণত হয় তবে বয়সের সাথে সাথে বেশি দুর্বল হওয়ার কারণে বয়স্ক লোকেরা বেশি ঝুঁকিতে থাকে
3. ধূমপান= অতিরিক্ত ধূমপানের কারণে হানির্য়া হতে পারে
4. কোষ্ঠকাঠিন্য= কোষ্ঠকাঠিন্য হওয়ার ফলে মলত্যাগের সময় স্ট্যানিং হয় যার ফলে এই হার্নিয়া হতে পারে
5. অকাল জন্ম= সময়ের আগে জন্ম এবং কম ওজনের জন্মের শিশুদের পরবর্তীতে হার্নিয়া হতে পারে

হার্নিয়া কোন জটিলতা আছে কি

কখনো কখনো যদি হার্নিয়াকে অবহেলা করা যায় এবং দীর্ঘ সময়ের জন্য চিকিৎসা না করা হয় তবে এটি কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্যরার কারণ হতে পারে আপনার শরীরের হার্নিয়া বাড়তে পারে এবং কাছাকাছি টিস্যুতে চাপ দিতে সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে যার ফলে সেই টিস্যুর তীব্র ব্যথা বা ফুলে যায় হার্নিয়া ফলে কখনো কখনো আপনার অস্ত্রগুলি আপনার পেটের পাশে আটকে যেতে পারে যা তীব্র ব্যথা বমি বমি ভাব এবং কোষ্ঠকাঠিন্য কারণ হতে পারে

হার্নিয়া রোগ নির্ণয়

বেশিরভাগ হার্নিয়া ডাক্তার যখন শারীরিক পরীক্ষা করে তখন নির্ণয় করা হয় কখনো কখনো আপনি যখন সোজা হয়ে দাঁড়ান তখন হার্নিয়ার দৃশ্যমান হয় আবার রোগী যখন নিচে নামতে তখন অনুভব করা যায় ডাক্তার রোগীকে স্ট্যান্ড বা কাশি বাপের পোলা অনুভব করতে বলতে পারেন

ডাক্তার দাঁড়িয়ে থাকা অবস্থায় হার্নিয়া আক্রান্ত রোগীকে পরীক্ষা করেন ডাক্তার একটি কাশি প্রবণতার জন্য দেখবেন রোগীকে কাশি দিতে বলা হয় এবং থলির অনুভব করা যায় বা পর্যবেক্ষণ করা যায় থলির সাইটের উপর নির্ভর করে রোগীর সঠিক পেট বা পরীক্ষা করা হয়

1. পেটের এক্সরে= অন্ত্রের  বাধা সন্দেহ গুলো এগুলো ব্যবহার করা হয়
2. আল্ট্রাসাউন্ড স্ক্যান= পেটের আল্ট্রাসাউন্ড স্ক্যান এর মাধ্যমে হার্নিয়া নির্ণয় করা হয় হার্নিয়া নির্ণয়ের জন্য করা আল্ট্রাসাউন্ড স্ক্যান গর্ভবতী মহিলাদের বোনের অসুস্থতা বুঝার জন্য ব্যবহৃত স্কেনের অনুরোধ একটিআল্ট্রাসাউন্ড স্ক্যান একটি সায়াময় কালো এবং সাদা ছবি দেয়আল্ট্রাসাউন্ড স্ক্যান ফলাফল অপারেটরের উপর নির্ভর করে একজন দক্ষ অপারেটার একটি বিষয় স্কিন রিপোর্ট পেতে পারে
3. এন্ডোসকপি= একটু টিউমারের সাথে সংযুক্ত একটি ছোট ক্যামেরা আপনার গলা খাদ্য নালি এবং পাকস্থলীর মধ্য দিয়ে পাশ্চাতন্ত্রের অভ্যন্তরীণ গঠন পর্যন্ত করে হাই টাচ হানি আর খেতে এটি কার্যকর শরীরের অভ্যন্তরে উপস্থিত হানিয়ার চিত্রগুলো ব্যবহার করে প্রাপ্ত করা যেতে পারে
4. বেরিয়াম এনিমা= বেরিয়ামের দ্রবণ পান করার পর পেটে আপনার পরিবর্তন এক্সপ্রেস ছবি একটি সিরিজ নেওয়া হয় এবং রেকর্ড করা হয় এটি অন্তের পথ দেখতে সাহায্য করে
5. নাম্বার ফাইভ সিটি স্ক্যান অথবা এম আর আই= সিটি স্ক্যান অথবা এমআরআই করে আপনার শরীরের হার্নিয়া সনাক্ত করা হয় এই পরীক্ষার মাধ্যমে আপনার শরীরে থাকা কোন হার্নিয়া উপস্থিত সনাক্ত করা হয়। সমস্ত হানিয়া এমআরআই ভার্সিটি স্কিনের মাধ্যমে সনাক্ত করা যায় না কিছু জটিল হানিয়া বা স্ক্যান গুলোর সাথে সনাক্ত করা যেতে পারে এভাবেই হার্নিয়া সনাক্ত করা হয়

হার্নিয়া চিকিৎসা
হার্নিয়া মেরামতের লক্ষ্য হলো অন্ধের স্থান পরিবর্তন করা এবং পেটের দেওয়ালে দুর্বল বেশি গুলোকে শক্তিশালী করা চার বছরের কম বয়সী শিশুদের নাভির হার্নিয়া নিজেরাই নিরাময় করে
কিছু কিছু হার্নিয়া জন্য চিকিৎসা জীবনযাত্রার পরিবর্তন যেমন ওজন কমানো এবং ভালো খাদ্য অভ্যাস প্রয়োজনীয় লক্ষণীয় চিকিৎসার মধ্যে রয়েছে ওষুধ এসিড নিরসন কমায় গুরুতর ক্ষেত্রে ল্যাপোস্কপি ফাউন্ডেশন এর করা যেতে পারে বড় হার্নিয়া ক্ষেত্রে সার্জারি করা বাধ্যতামূলক
হার্নিয়া বিভিন্ন ধরনের চিকিৎসা
1. ওষধ
2. সার্জারি
3. জীবন ধারণ পরিবর্তন
ঔষধ= হাইটাল হার্নিয়া জন্য ঔষধ প্রয়োজন ওটিসি ঔষধ এবং প্রেসক্রিপশন এর ওষুধগুলি হাইটাল হার্নিয়া লক্ষণগুলি থেকে মুক্তি দেয়
সার্জারি= বেশিরভাগ ক্ষেত্রে অশিস্থিতি দূর করতে গুরুতর জটিল প্রতিরোধ করার জন্য অস্ত্রোপচার মূল বিকল্প

 ওপেন হার্নিয়া মেরামত
ওপেন হার্নিয়া মেরামতের ক্ষেত্রে সার্জন পুচকিতে একটি শ্বেত বা কাটা তৈরি করে এবং প্রসারিত টিস্যুকে পেটের দিকে ঠেলে দেয় এটি স্থায়ী বা সাধারণ আনিশিয়াল প্রয়োগ বা প্রশাসনের পরে করা হয় এটি অনুসরণ করে সার্জন দুর্বল জায়গাটি সেলাই করার পরে এটি একটি জালকে শক্তিশালী করা হয় একে হার নিয়ে প্লাস টিউ বলা হয়। খোলার পরে সেলাই বা অস্ত্র পাচারের আঠা দিয়ে বন্ধ করা হয় একজন ব্যক্তি যিনি হার্নিয়া মেরামত করছেন তার স্বাভাবিক কার্যক্রম পুনরায় শুরু করতে কয়েক সপ্তাহ সময় লাগে

ল্যাপারোস্কোপিক মেরামত
ল্যাপারোস্কোপিক মেরামত ক্ষেত্রে একজন সার্জন পেটে কয়েকটি ছোট কি হোল কাটার মাধ্যমে কাজ করে অভ্যন্তরীণ অঙ্গ গুলির স্পর্শের জন্য পেটকে স্ফীত করতে গ্যাস ব্যবহার করা হয় একটিল্যাপারোস্কোপিক বা একটি ছোট টিউব যার এক প্রান্তে একটি ছোট ক্যামেরা থাকে একটি কাটারের মাধ্যমে ঢুকানো হয় পর্দায় ক্যামেরার মাধ্যমে অভ্যন্তরীণ অঙ্গগুলি দেখা যায় সার্জন শরীরের মধ্যে চিহ্নিত একটি হার্নিয়া মেরামত করতে অন্যান্য কাটা ব্যবহার করে

ল্যাপারোস্কোপিক মেরামত করা রোগীর ওপেন সার্জন করেছে তাদের তুলনায় অনেক কম অস্বস্তি অনুভব করে দাগগুলি খুব কম বা ছোট হয় এ রোগীরা শীঘ্রই স্বাভাবিক কার্যক্রম পুনরায় শুরু করতে পারে ঐতিহ্যবাহী হার্নিয়া অত্র পাচারের পরে হার্নিয়াস পূর্ণবৃত্তি হয়েছে এমন লোকদের জন্য এই পদ্ধতিটি কার্যকর বলে প্রমাণিত হয়েছে যাদের শরীরে উভয় পাশে হার্নিয়া রয়েছে তাদের জন্য এটি একটি ভালো পছন্দ হিসেবে দেখা দেয়
অস্তোপাচারের মাধ্যমে হার্নিয়ার সফল চিকিৎসার কিছু কারণ এর উপর নির্ভর করে যেমন
1. সার্জনের দক্ষতা
2. হার্নিয়ার আকার
3. প্রত্যাশিত পুনরুদ্ধকরণের সময়

কিভাবে আপনি হার্নিয়া থেকে পুনরুদ্ধার করবেন

অস্তোপচারের পর আপনাকে নির্দেশনা দেয়া হবে পরিষ্কার খাবার পরিষ্কার জীবন যাপন একটি স্বাস্থ্যকর জীবন গ্রহণ অবশ্যই পুনরুদ্ধারের সাহায্য করবে প্রভাবিক এলাকায় অত্যাধিক ছাড়া ফেরাতে চেষ্টা করুন অন্যথায় সঠিকভাবে যত্ন না নিলে এটি আবার দেখা দিতে পারে হার্নিয়া পুরনোবৃত্তির দুটি কারণ অতিরিক্ত ওজন ও ধূমপান

হার্নিয়া জন্য সঠিক ব্যায়াম আছে

হার্নিয়ার জন্য নির্দিষ্ট করে কোন ব্যায়াম নেই তবে আপনার শরীরের উপর নির্ভর করে আপনি ব্যায়াম করতে পারেন আপনার হৃদপিণ্ড তাদের দ্রুত স্পন্দন হয় এমন ব্যায়াম করুন আপনার শ্বাস প্রশ্বাস যাতে উন্নত হয় এমন ব্যায়াম করতে পারেন আপনি হালকা দৌড়াতে পারেন কিছু জকিং করতে পারেন বা সাঁতার কাটতে পারেন তবে প্রথমে আপনাকে ডাক্তারের পরামর্শ গ্রহণ করতে হবে

গর্ভাবস্থায় কি হার্নিয়া হতে পারে

আপনি যদি একটু সন্তানের আশা করেন এবং আপনার যদি হার্নিয়া আছে বলে সন্দেহ হয় তাহলে আপনি অবিলম্বে ডাক্তারের সাথে পরামর্শ গ্রহণ করে কিছু রিপোর্ট করে সেটা দেখতে পারেন এটি আপনার স্বাস্থ্যের জন্য সুখী কমাবে একটি হার্নিয়া মেরামত শিশুর জন্ম না হওয়া পর্যন্ত স্থগিত করা হবে যাইহোক যদি গর্ভাবস্থায় আগে বা পরে এমন একটি হালকা হার্নিয়া বেড়ে যায় তাহলে এটি সংশোধনের জন্য চিকিৎসার পরামর্শ দিতে হবে

হার্নিয়া প্রতিরোধের উপায়

পেশী দুর্বলতার কারণে হার্নিয়া হয় সব সময় প্রতিরোধ করা যায় না হার্নিয়া প্রতিরোধ করার জন্য ইতোমধ্যে উপস্থিত হার্নিয়া গুলো টিকার করা এড়াতে কিছু ক্রিয়াকলাপা শারীরিক উপর চাপ বৃদ্ধি করে তা এড়ানো যেতে পারে তাই হার্নিয়া হার্নিয়া প্রতিরোধের কিছু উপায়
1. ত কাশি খারাপ হওয়ার আগেই চিকিৎসা করাতে হবে অবিরাম কাশি হার্নিয়াকে আরো খারাপ করতে তুলতে পারে তাই হার্নিয়া হওয়ার আগে কাশি ভালো করতে হবে
2. কঠোর শারীরিক কার্যকলাপ এড়িয়ে চলুন শারীরিক কার্যকলাপ হঠাৎ বৃদ্ধি হার্নিয়া শুরু করতে পারে তাই এটি এড়ানো উচিত
3. দ্রুত ওজন কমানো থেকে নিজেকে বিরত রাখতে হবে কারণ দ্রুত ওজন কমাতে গিয়ে শরীরের প্রোটিনের ঘাটে দেখা দিতে পারে এতে হার্নিয়া হতে পারে
4. শরীরের ওজন স্বাভাবিক রাখতে হবে তাছাড়া ওজন বেড়ে গেলে সেটা টিস্যুর উপর চাপ পড়ে এতে হার্নিয়া হতে পারে
5. ধূমপান এড়িয়ে চলুন ধূমপানের কারণে হার্নিয়া হতে পারে
6. কোষ্ঠকাঠিন্য হলে তার চিকিৎসকের পরামর্শ নিন তা না হলে মলত্যাগের সময় অতিরিক্ত চাপ পড়লে হার্নিয়া হতে পারে

শেষ কথাঃহার্নিয়া রোগ কি হার্নিয়া রোগ হলে করণীয় কি-হার্নিয়া রোগের লক্ষণ গুলি কি কি

আজকে আমরা এই আর্টিকেলের মাধ্যমে হার্নিয়া সম্পর্কে অনেক কিছু জানতে পারলাম হার্নিয়া কি হার্নিয়া লক্ষণ হার্নিয়া কত প্রকার হার্নিয়া হলে কি হয় তাছাড়া হার্নিয়া প্রতিরোধের উপায় হার্নিয়া সম্পর্কে আরো কিছু জানতে পারলাম তাই এই আর্টিকেলটি যদি আপনাদের ভালো লাগে তাহলে বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন এবং আরো কিছু জানার থাকলে তা কমেন্ট করে জানিয়ে দিন

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

অর্ডিনারি আইটির নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url

এইটা একটি বিজ্ঞাপন এরিয়া। সিরিয়ালঃ ৪